তল্লার বেলতলীতে আবারো গুল্লি জনির রমরমা মাদক ব্যবসা

শিরোনাম প্রতিবেদন
কিছুদিন বন্ধ থাকার পর ফের মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে মাদক কারবারীরা। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলাধীন তল্লার বেলতলী এলাকায় প্রকাশ্যেই চলছে রমরমা মাদক ব্যবসা। জানা গেছে, ক্রসফায়ারে নিহত হওয়া মাষ্টার দেলুর অন্যতম সহযোগী জনি ওরফে গুল্লি জনি জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরপরই তার অনুসারীরা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে পুরো মহল্লা।

স্থানীয়দের দেয়া তথ্যমতে, মাষ্টার দেলুর সহযোগী জনি ওরফে গুল্লি জনি, সুমন ওরফে বাঘা সুমন, খলিল, কসাই, শরীফ ওরফে পেপো শরীফ, শাওন ওরফে জেএমবি শাওন সহ অন্তত ২০-২৫ জন মাদক কারবারী প্রকাশ্যেই চালাচ্ছে মাদকের কারবার। পুরো এলাকায় হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে ইয়াবা, ফেনসিডিল, হেরোইন, মদ, বিয়ার ও গাঁজার মতো মাদক। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় চলছে এসব মাদক বিক্রির কাজ।

সচেতন এলাকাবাসীর অভিযোগ, মাদক উদ্ধার ও ব্যবসায়ী গ্রেফতারে প্রশাসনের বিশেষ কোনো তৎপরতা নেই। মাদকসেবীরাই এখন বাড়তি আয়ের আশায় ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে, যাদের অনেকেই পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত। তোলারম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অনার্স পড়ুয়া মামুন হোসেন জানান, শুধু মাদকই শেষ নয়, মাদকের ছত্রচ্ছায়ায় তল্লার বেলতলী হয়ে উঠেছে অপরাধীদের অভয়ারণ্য। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাদক ব্যবসায়ী জানান, থানা পুলিশের কিছু কর্মকর্তা তাদের কাছ থেকে নিয়মিত মাসোহারা নেন। তাই তাদের এ ব্যবসা চালাতে খুব একটা সমস্যা হয় না।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায় তল্লার বেলতলী এলাকায় একাধিক মাদক ডিলারের বসবাস রয়েছে। এরা সকলে চিহ্নিত বিক্রিতা না হলেও বর্তমানে এরাই অত্র এলাকা সহ সমগ্র নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে মাদকের সেল্টার দাতা হিসেবে চিহ্নিত। এমনটাই অভিযোগ এলাকাবাসীর। তবে, অত্র এলাকার ইয়াবা ট্যাবলেটের ডিলার সম্প্রতি জেল থেকে বের হওয়া গুল্লী জনি।

প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এলাকাবাসীর দাবি, অনতি বিলম্বে যেন বেলতলীতে পুলিশের অভিযান পরিচালনা করা হয়। বিশেষ করে জেল থেকে বের হওয়া গুল্লি জনিকে গ্রেফতার করলেই মাদকের কারবার বন্ধ হবে বলে জানায় তারা।

Read Previous

‘ইতিহাসে থাকবেন জিয়া, এ নাম মুছবার নয়’

Read Next

ছাত্রলীগ পরিচয়, ইভনকে মারধর ও কুপিয়ে জখম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *